সত্যশ্রী অবিলাসী সাংবাদিকতা


বিপ্লব হোসেন (ফারুক)


তথ্য আদান-প্রদানের বিষয়টি সংবিধান স্বীকৃত। রাষ্ট্রের প্রতিটি দাপ্তরিক প্রতিষ্ঠানের একমাত্র গোপনীয় শাখা ব্যতীত জনসাধারণের জন্য উন্মুক্ত এমন সব প্রতিষ্ঠানে তথ্য আদান-প্রদানের ক্ষেত্রে সাংবাদিকদের প্রবেশ অধিকার বিধি অনুযায়ী সুনিশ্চিত হলেও বাস্তবতায় প্রায়সি দেখা মেলে তথ্য সংগ্রহকালে বিভিন্ন ক্ষেত্রে উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তাদের নিগৃহীত আচরণ সহ সাংবাদিকদের নানান হয়রানির শিকার হতে ।

দাপ্তরিক ভাবে সম্মানিত কর্ম কর্তাগণ প্রজাতন্ত্রের অধীনস্থ বেতন ভুক্ত কর্মচারী, যা অস্বীকার উপযোগী নয়। কিন্তু সাংবাদিকগণ তথ্য মন্ত্রণালয়ের অধীনস্থ হলেও তারা বেতনভুক্ত কর্মচারী নন।তার পরেও পেশাদার সাংবাদিকগণ দেশ ও জাতির কল্যাণে বিনা পারিশ্রমিকে নিজেকে বলিদানে সর্বদায় প্রস্তুত থাকে।

এক শ্রেণীর সত্যশ্রী এমন কিছু পেশাদার অবিলাসী সাংবাদিক রয়েছেন তাহারা অনাহারে অর্দাহারে দিনাতিপাত করলেও নিজ থেকে কারো বিরুদ্ধে কোন অনুযোগ অভিযোগ করে না।এর জন্য সেই শ্রনীর সাংবাদিক সমাজ নিজেকে নিজেই দায়ী মনে করে নিশিথো পাখির মতো নিভৃতে কাঁদে, যার অশ্রু জল বিলাসী প্রাণহীন প্রায়াৎ ব্যক্তির দেহের মত মাটিতেই মিশে যায়। (চলবে)

Leave a Reply